দৃর্যোগকালে অন্য রকম মে দিবস পালিত হচ্ছে

757

মহান মে দিবসের ছবি তুলেছেন সিনিয়র ফটো  সাংবাদিক এম এ সুমন

মিরর বাংলাদেশ : মিছিল নেই, জনসভা নেই, ফেস্টুন নেই, ব্যানার নেই। এমনকি লাল ঝাণ্ডা হতে কোনো শ্রমিককে দেখা গেল না রাজপথে। তবুও আজ মহান মে দিবস। রাজপথে সশরীরে উপস্থিত হয়ে মিছিল, মিটিং ও জনসভা না করতে পারলেও মন থেকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে সবাই পালন করছেন এই দিনটি।

দিবসটি উপলক্ষে সংবাদপত্রগুলো বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশ করেছে। টেলিভিশন এবং রেডিও বিশেষ অনুষ্ঠান প্রচার করছে। মহাবিপর্যয় বয়ে আনা করোনাভাইরাসের কারণে এবার ভিন্নভাবে পালিত হচ্ছে মহান মে দিবস।

প্রতিবছর এ দিনটি এলেই সারাবিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বিভিন্ন রাজনৈতিক, শ্রমিক সংগঠন, সামাজিক, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন নেমে আসে রাজপথে লাল ঝান্ডা হতে। ঢাকার বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউ, পল্টন, নয়া পল্টন, তোপখানা রোড, জাতীয় প্রেস কাবের সামনে, মতিঝিল শাপলা চত্বরে দেখা যায় মিছিলরত মানুষ আর মানুষ। এছাড়া শ্রমিক-অধ্যুষিত এলাকা নারায়ণগঞ্জ, ডেমরা, সায়েদাবাদ, টঙ্গী, গাজীপুর, সাভারসহ বিভিন্ন শিল্প- কলকারখানা এলাকাগুলোতে শ্রমিকরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে বের হয়ে দিবসটি পালন করতেন। কিন্তু করোনাভাইরাস এবার মে দিবসের দৃশ্যপট পাল্টে দিয়েছে। এবার বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, সংগঠন ও শ্রমিক সংগঠন সবাই নিজ নিজ অবস্থান থেকে ম‎হান মে দিবস পালনের জন্য বিবৃতি দিয়েছে।

আজ সরকারি ছুটির দিন। প্রতিবার রাষ্টীয়ভাবে দিবসটি পালন উপলক্ষে শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করলেও এবার করোনার কারণে কোনো কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়নি। ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টি প্রতিবারই এই দিনটিতে বড় বড় শ্রমিক সমাবেশের আয়োজন করলেও এবার করোনার কারণে সকল সমাবেশের কর্মসূচি বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ তার বাণীতে বলেন, মহান মে দিবস সারাবিশ্বের শ্রমজীবী মানুষের ঐক্য ও সংহতির প্রতীক।

রাষ্ট্রপতি বলেন, বাংলাদেশের মতো শ্রমনিবিড় উন্নয়নশীল দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে শ্রমিক ও মালিকের মধ্যে পারস্পরিক সমঝোতা ও হৃদ্যতা বজায় রাখা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আজীবন মেহনতি মানুষের অধিকার আদায়ের জন্য রাজপথে লড়াই সংগ্রাম করেছেন।