ছেলের পর অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা গেলেন সাংবাদিক মোয়াজ্জেম হোসেন নান্নু

303

মিরর বাংলাদেশ :

সবাইকে শোকের সাগরে  ভাসিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলেন  যুগান্তরের সিনিয়র ক্রাইম রিপোর্টার এবং ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন নান্নু। আজ শনিবার সকাল ৮টা ২০

মিনিটে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটিতে শেষ নি:স্বাস ত্যাগ করেন তিনি। ইন্না-লিল্লাহ ওয়াইন্নাএলাইহি রাজেউন। ছেলে পিয়াস অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যাওয়ার পর  একই ভাবে ৬ মাসের মাথায় অগ্নিদ্গ্ধ হয়ে মারা গেলেন সাংবাদিক নান্নু।

সিনিয়র সাংবাদিক নান্নুর মৃত্যুতে মিরর বাংলাদেশের      পরিবারের পক্ষ থেকে গভীর শোক ও সমবেদনা রইল।

 

 

মাত্র ছয় মাস আগে গত ২ জানুয়ারি দৈনিক যুগান্তরের সিনিয়র ক্রাইম রিপোর্টার এবং ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন নান্নুর বাসায় বিস্ফোরণে অগ্নিদগ্ধ হয়ে তাদের একমাত্র সন্তান মিউজিক ডাইরেক্টর পিয়াস (২৪) প্রাণ হারান। এবার ফের ওই একই বাসায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় দগ্ধ হয়েছেন  মোয়াজ্জেম হোসেন নান্নু।

শুক্রবার (১২ জুন) ভোরে রাজধানীর বাড্ডার আফতাবনগরের ৩ নম্বর রোডের বি ব্লকের ৪৪/৪৬ নম্বর নিজ বাসায় হঠাৎ আগুন লাগে।

দ্রুতই আগুন নির্বাপন হলেও দগ্ধ হন সাংবাদিক নান্নু। গুরুতর অবস্থায় তাকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়েছে।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের সমন্বয়কারী ডা. সামন্ত লাল সেন জানিয়েছিলেন, রোগীর অবস্থা খুবই ক্রিটিক্যাল। তার শরীরের প্রায় ৬০ শতাংশের মতো পুড়ে গেছে। আশংকাজনক হওয়ায় ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে (আইসিইউ) স্থানান্তর করা হয়েছে।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট থেকে সকালে তার স্ত্রী শাহীনা আহমেদ পল্লবী জানান, রাত্রিকালীন অফিস শেষে বাসায় ফিরে খাওয়া দাওয়ার পর রাত ৩টার দিকে হঠাৎ করে শব্দ হয়।

গ্যাসের গন্ধও পাওয়া যাচ্ছিল। গ্যাস লাইনের লিকেজ থেকে সম্ভবত অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয়। তাতেই দগ্ধ হন তিনি।

বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দ নান্নুর অগ্নিদগ্ধের খবর পেয়ে হাসপাতালে ছুটে গেছেন।