হরিরামপুরে পদ্মার বেড়িবাঁধ ভাঙ্গন পরিদর্শন করলেন পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী

596

হরিরামপুরে পদ্মার বেড়িবাঁধ ভাঙ্গন পরিদর্শন করলেন জেলা পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী
মিরর প্রতিনিধি  (হরিরামপুর): মানিকগঞ্জের হরিরামপুরে পদ্মার বেড়িবাঁধ ভাঙ্গনের খবর প্রকাশে  বৃহস্পতিবার  দুপুরে উপজেলার ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেন জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহামদ মাঈন উদ্দিন।
গত কয়েকদিন ধরে উপজেলার রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের (উজানে) এবং বয়ড়া ইউনিয়নের আন্ধারমানিক, খালপাড় বয়ড়া, দড়িকান্দী, বকচর, জগন্নাথপুরের পদ্মা পাড়ের বেড়িবাঁধটি প্রাকৃতিক ঝড় আম্ফানের পর থেকেই পদ্মায় উজানের স্রোত আর তীব্র বাতাসে ঢেউয়ের সৃষ্টি হওয়ায় এবং নদীর মাঝে ছোট ছোট চর জেগে ওঠার কারনে জিও ব্যাগ দিয়ে মেরামতকৃত বেরিবাঁধটি ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয়। ফলে হুমকির মুখে রামকৃষ্ণপুর ও বয়ড়া ইউনিয়নের বেশ কয়কটি গ্রাম। গত ২৬মে মিরর বাংলাদেশসহ   কয়েকটি অনলাইন পোর্টালে খবর প্রকাশিত হলে নজরে আসে জেলা পাউবোসহ উপজেলা প্রশাসনের। ওই দিনই ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. বিল্লাল হোসেন। তাঁর প্রতিবেদনেই আজ সরেজমিনে পরিদর্শনে আসেন জেলা পাউবোর এ কর্মকর্তা।
উল্লেখ্য যে গত ২০১৬ সালে ফ্লাড এন্ড রিভার ব্যাংক ইরোশন রিস্ক ম্যানেজমেন্ট ইনভেষ্টম্যান প্রোগ্রাম (প্রথম পর্যায়) এর আওতায় হরিরামপুর উপজেলার বামদিকের পদ্মা নদীতে ৭.০০ কিঃমিঃ, পরে ২ কিঃমি বাড়িয়ে মোট ৯.০০ কিঃমি নদী তীর সংরক্ষনমূলক কাজ করা হয় (জিও ব্যাগ ফেলে নদী শাসন করা হয়)।
ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরিদর্শন প্রসঙ্গে জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ মাঈন উদ্দিন মুঠোফোনে জানান, অাজকে অামরা ভাঙন পরিদর্শন করেছি। জরুরি ভিত্তিতে কাজ শুরু করা দরকার বলে আমরা বোর্ডকে জানিয়েছি। তারা অনুমতি দিলে অামরা কাজ শুরু করবো।
এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দেওয়ান আঃ রব, হারুকান্দি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান চুন্নু, জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের কার্যসহকারি ইকবাল হাসানসহ স্থানীয় জনগণ।